যখন বুঝবেন জীবন নিয়ে আপনার একটু “সতর্ক” হওয়া দরকার

“মুভি দেখতে দেখতে কিংবা গেইম খেলতে খেলতে রাত ১/২/৩/৪ বেজে গেছে, ঘুমিয়ে পড়লাম, সকাল গড়িয়ে দুপুর হয়ে এলো”

এই টাইপ যদি হয় আপনার নিত্যদিনের রুটিন, তবে একটু ভেবে দেখার সময় হয়েছে মনেহয়। অকেশনাল কিছু হওয়া কোন ব্যাপার না, কিন্তু প্রায়ই হওয়াটি উদ্ভেগের কারন অনেকের জন্য। মাঝে মাঝেই হয়ত জীবন নষ্ট করা নিয়ে বড়দের কাছ থেকে অনেক কথা আমাদের শুনতে হয়। আর এই নষ্ট জীবন বলতে সচরাচর জীবনের সময়গুলো কে বৃথা পরিত্যক্ত করা আর সংকটের দিকে ধাবিত হওয়াকে বুঝায়। কিন্তু নিজের তেমন ক্ষতি হয়ে যাচ্ছে বুঝার উপায় কি? এর বুঝার উপায় অনেক আছে আবার ঙ্কিছু ব্যতিক্রমও আছে। তবে কিছু বেশি পরিচিত লক্ষণ তুলে ধরলাম একজন বিজ্ঞ মানুষের কথা থেকে,

  • যখন দেখবেন ভোরের ঐ আরামের ঘুমের চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ এবং মজার কোন কিছু/কাজ নেই আপনার হাতে নেই, এবং আপনি গড়া-গড়ি খেতে খেতে অবশেষে অনেক বেলা করে ঘুম থেকে উঠেন। কোন উদ্দেশ্য নেই, কোন পরিকল্পনা নেই।
  • যখন দেখবেন নিজের পছন্দ বা ভালো লাগা- মন্দ লাগা কে উপেক্ষা করে প্রায়ই আপনি একচেটিয়া মানুষকে সন্তুষ্ঠ করে বেড়ান, People Pleaser হয়ে উঠেন।
  • যখন আপনি নিজের জন্য ভালো-মন্দ বিচার না করেই প্রচলিত প্রথায় গা ভাসিয়ে দেন, কখনো চিন্তা করেন যা করছেন আদৌ যৌক্তিক কিনা অথবা অন্ধভাবে অনুসরন করার মতো কিনা। সবাই করে তাই করি, এমন যখন হয় নিত্যদিন।
  • আপনি যা কিছু করা যোগ্য বা যা কিছু হওয়ার যোগ্য, আপনি যদি প্রায়ই তারচেয়ে কম মানের কিছু হতে এবং করতে অভ্যস্থ হয়ে যান।
  • যখন আপনি মানুষ, ভালোবাসা, সম্পর্ক এবং অনুভূতি এগুলো অবজ্ঞা করে একচেটিয়া অর্থ কিংবা বস্তুকেন্দ্রিক হয়ে যান।
  • অতীতের দিকে তাকিয়ে যখন আপনি শুধু আক্ষেপ ই করেন কিন্তু কোন শিক্ষা নেন না।
  • যখন আপনি প্রতিদিন এমন কিছু করছেন যা আপনি আসলে মনেপ্রাণে করছেন না বা করতে চান না।
  • যখন আপনি শুধু সমাজের ভয়ে ধ্বংসাত্নক সম্পর্কের মধ্যে আটকে যান, এর থেকে উত্তরণ পান না।
  • যখন আপনি নিত্যদিনের কোন অন্যায় কে মেনে নিয়ে এর সাথেই বসবাস করেন।
  • আর যখন আপনার মধ্যে কিছুক্ষন পর পর মোবাইলের স্ক্রিনে হারিয়ে যাওয়ার অভ্যাস গড়ে উঠে।

এরকম আরো অনেক কিছু আছে যেগুলো আমাদের অজান্তেই প্রতিদিন ধীরে ধীরে আমাদের ধ্বংসের দিকে টেনে নিচ্ছে, এমন একটি জীবন দিচ্ছে যাতে আমি-আপনি কোন “প্রাণ” পাই না, উদ্যম পাই না, উচ্ছ্বাস পাই না। কোথায় যেন কোন শূন্যতা, মনের গভীরে কোথাও যেন কিছু নেই…… এত কিছু করি, এত টাকা খরচ করি, কিন্তু জীবন যেন কিছুতেই “প্রাণ” পায় না, স্বার্থকতা পায় না। বলব, একটু সময় নিন, ভাবুন, বের করুন কোথায় সমস্যা এবং সেটি ঠিক করুণ, সব ঠিক হয়ে যাবে। তবে কতক্ষন সময় নিবেন এর জন্য? ৫-৭ মিনিট, তাই? দুঃখিত, এটি একটি জীবনের ব্যাপার।  আপনি একবারই বাচবেন। অমূল্য এ ধন এর জন্য একটি মাসও তেমন কিছু না।

আমরা না চাইতেই অনেক কিছু পেয়েছি, জীবন, দেহ, শক্তি পেয়েছি, তাই আমরা এর মূল্যায়ন করি না। এর কোন মূল্য সচরাচর আমাদের কাছে থাকে না। কিন্তু তা কি ঠিক?

নিজের মূল্যায়ন করুণ, সময়ের মূল্যায়ন করুণ, যা পেয়েছেন তার মূল্যায়ন করুণ, দেখবেন হাতে থাকা মূল্যবান জিনিস না হারিয়ে উলটো আরো অনেক মূল্যবান জিনিস একের পর এক আপনার দিকে আসতে থাকবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *